বোরকাকে মেনে নেব, যখন পুরুষেরা ভালোবেসে বোরকা পরবে: তসলিমা

মা হওয়ার সুখবর দিয়েছেন বলিউডের জনপ্রিয় নায়িকা প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। তবে এমন খবরে সবচেয়ে খুশি ভক্তরা হলেও নিন্দুকেরা চুপসে গেছেন। কারণ বেশকিছু দিন ধরে খবর রটেছিল বিচ্ছেদের পথে নিক জোনাস ও প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। এদিকে এই নায়িকার এমন খবরে চটেছেন তসলিমা নাসরিন।

কারণ ‘সারোগেসি’ সন্তান ধারণের এই নতুন পন্থাটি অবলম্বন করেছেন প্রিয়াঙ্কা। এই প্রক্রিয়ায় অন্য কোনো নারীর গর্ভ ভাড়া করেই মূলত মা হতে পারবেন যেকোনো নারী। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সরব থাকা লেখিকা সম্প্রতি এমনটাই জানালেন পোস্ট করে।

এই নির্বাসিত লেখিকা তসলিমা তার পোস্টে লেখেন, ‘সারোগেসি বিজ্ঞানের চমৎকার একটা আবিষ্কার। কিন্তু সারোগেসি তত দিন টিকে থাকবে, যত দিন সমাজে দারিদ্র্য টিকে থাকবে। দারিদ্র্য নেই, তো সারোগেসিও নেই। দরিদ্র মেয়েদের জরায়ু টাকার বিনিময়ে নয় মাসের জন্য ভাড়া নেয় ধনীরা। ধনী মেয়েরা কিন্তু তাদের জরায়ু কাউকে ভাড়া দেবে না। কারণ গর্ভাবস্থায় জীবনের নানান ঝুঁকি থাকে, শিশুর জন্মের সময়ও থাকে ঝুঁকি। দরিদ্র না হলে কেউ এই ঝুঁকি নেয় না।’

পোস্টে তসলিমা নাসরিন আরও লেখেন, ‘গৃহহীন স্বজনহীন কোনো শিশুকে দত্তক নেওয়ার চেয়ে সারোগেসির মাধ্যমে ধনী এবং ব্যস্ত সেলিব্রিটিরা নিজের জিনসমেত একখানা রেডিমেড শিশু চায়। মানুষের ভেতরে এই সেলফিস জিনটি, এই নার্সিসিস্টিক ইগোটি বেশ আছে। এসবের ঊর্ধ্বে উঠতে কেউ যে পারে না তা নয়, অনেকে গর্ভবতী হতে; সন্তান জন্ম দিতে সক্ষম হলেও জন্ম না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়।’

তার দেওয়া পোস্টে উল্লেখ করে একটি শর্ত জুড়ে দেন সারগোসি নিয়ে। তিনি লেখেন, ‘সারোগেসিকে তখন মেনে নেব যখন শুধু দরিদ্র নয়, ধনী মেয়েরাও সারোগেট মা হবে, টাকার বিনিময়ে নয়, সারোগেসিকে ভালোবেসে হবে। ঠিক যেমন বোরকাকে মেনে নেব, যখন পুরুষেরা ভালোবেসে বোরকা পরবে।

মেয়েদের পতিতালয়কে মেনে নেব, যখন পুরুষরা নিজেদের পতিত-আলয় গড়ে তুলবে, মুখে মেকআপ করে রাস্তায় ত্রিভঙ্গ দাঁড়িয়ে কুড়ি-পঁচিশ টাকা পেতে নারী-খদ্দেরের জন্য অপেক্ষা করবে। তা না হলে সারোগেসি, বোরকা, পতিতাবৃত্তি রয়ে যাবে নারী এবং দরিদ্রকে এক্সপ্লয়টেশনের প্রতীক হিসেবে।’

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*